খেলার মাঠে সবার আগে
Nsports-logo

সোমবার, ১৫ই এপ্রিল ২০২৪

বড় হার, তবু সিরিজ ড্রয়ের স্বস্তি

0

ক্রাইস্টাচার্চ টেস্ট পূর্ব সংবাদ সম্মেলনে কিইউই অধিনায়ক টম লাথাম স্পষ্ট ঘোষণা দিয়েছিলেন- ‘রস টেলরকে জয় দিয়ে বিদায়ী উপহার দিতে চাই’।
সেটিই করে দেখালেন ব্ল্যাক ক্যাপ্সরা। বাংলাদেশকে ধুলোই মিশিয়ে জয়টা নিজেদের করে নিলেন নিউজিল্যান্ড। আর তাতেই দ্বিতীয় টেস্টে ইনিংস ব্যবধানে হারের লজ্জা নিয়ে মাঠ ছাড়তে হলো মুমিনুল হকের দলকে।

টেস্টের তৃতীয় দিনেই কিউইদের কাছে ইনিংস ও ১১৭ রানের হারতে হয়েছে বাংলাদেশকে। তবে স্বস্তি এতটুকু, সিরিজ ড্র করতে পারলো টাইগাররা।

প্রথম ইনিংসে লাথামের ডাবল সেঞ্চুরিতে নিউজিল্যান্ডের করা ৫২১ রানের জবাবে প্রথম ইনিংসে ১২৬ রান তুলতেই প্যাকেট বন্দি হয়ে যায় বাংলাদেশ।

বাংলাদেশ
দ্বিতীয় টেস্টে লিটনের সেঞ্চুরিটা ই একমাত্র অর্জন বাংলাদেশের।

 

তৃতীয় দিনে দ্বিতীয় ইনিংসের শুরুটা ভাল করে বাংলাদেশ। সাদমানের বিদায়ের পর উইকেটে থিতু হয়ে বসেন নাঈম শেখ ও নাজমুল শান্ত। দুজনের ব্যাটে কিছুটা স্বস্তি আসলেও নেইল ওয়েগন্যারের কারিশমায় শান্তকে বেশিক্ষণ টিকতে দেননি ফেরার আগে তার ব্যাট থেকে আসে ২৯ রান।

উইকেটে থাকা নাঈম কাপ্তান মুমিনুল হকের সঙ্গে জুটি বেঁধে দলকে এগিয়ে নিয়ে যেতে থাকেন নাঈম। এই দুজনেই বাংলাদেশকে দলীয় সংগ্রহ ১০০ এর কোটায় নিয়ে যায়। দলীয় ১০৫ রানে নাঈম সাজঘরে ফেরেন।

প্রথম ইনিংসে ০ রান করা মুমিনুল ৩৭ রান করে ওয়েগন্যারের স্বীকার হন। ব্যাটিং বিপর্যয়ে যখন উইকেটের অপরপ্রান্তে যখন আসা যাওয়ার মিছিল, তখন উইকেট কামড়ে ধরে বসেছিলেন লিটন কুমার দাস। পেয়েছেন শতক। এ যেন ধু ধু মরুভূমিতে এক পশলা বৃষ্টি। ১০৬ বলে ১৪ চার ও এক ছয়ে তুলে নেন টেস্ট ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় সেঞ্চুরি। এরপর কাইল জেমিসনকে উইকেট দিয়ে ফেরেন তিনি৷

এরপরই মূলত বাংলাদেশের সূর্যটা অস্তমিত হতে থাকে। শেষ পর্যন্ত সবগুলো উইকেট হারিয়ে ২৭৮ রান পর্যন্ত পৌঁছায় বাংলাদেশ।
আর এতেই ইনিংস ও ১১৭ রানে জয়ের তৃপ্তি নিয়ে মাঠ ছাড়ে লাথাম বাহিনী। সিরিজ সেরা হয়ে হয়েছেন ডেভন কনওয়ে।

স্কোরবোর্ড: (২য় টেস্ট)
টস: বাংলাদেশ

নিউজিল্যান্ড (১ম ইনিংস) : ৫২১/৬ ডি. (১২৮.৫ ওভার)
লাথাম ২৫২, কনওয়ে ১০৯, ইয়াং ৫৪ ; শরিফুল ২৮-৯-৭৯-২, ইবাদত ৩০-৩-১৪৩-২

বাংলাদেশ (১ম ইনিংস) : ১২৬/১০ (৪১.২ ওভার)
ইয়াসির ৫৫, সোহান ৪১, লিটন ৮ ; বোল্ট ১৩.২- ৩-৪৩-৫, সাউদি ১২-৪-২৮-৩

বাংলাদেশ (২য় ইনিংস) : ২৭৮/১০ (৭৯.৩ ওভার)
লিটন ১০২, মুমিনুল ৩৭, সোহান ৩৬ ; জেমিসন ১৮-৪-৮২-৪, ওয়েগন্যার ২২-৭-৭৭-৩

ম্যাচ সেরা: টম লাথাম
সিরিজ সেরা : ডেভন কনওয়ে
ফলাফল: নিউজিল্যান্ড ইনিংস ও ১১৭ রানে জয়ী

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More

Privacy & Cookies Policy