খেলার মাঠে সবার আগে
Nsports-logo

রবিবার, ১৪ই জুলাই ২০২৪

জয়হীন পিএসজি-রিয়াল, ভেরোনাকে হারাল এসি মিলান

0

ফ্রেঞ্চ লিগ ওয়ানের শিরোপা জয়ের পর যেনো জিততেই ভুলে গেছে পিএসজি। সবশেষ ট্রয়েসের সঙ্গে ২-২ গোলে ড্র করেছে মেসি-নেইমার-এমবাপ্পে। অন্যদিকে, লা-লিগা চ্যাম্পিয়ন হওয়ার পরের ম্যাচেই হোটচ খেল রিয়াল মাদ্রিদ। অ্যাতলেতিকো মাদ্রিদের কাছে ১-০ গোলে উড়ে গেল তারা। অন্যম্যাচে ভেরোনার মাঠে জয় ছিনিয়ে সিরি ‘আ’ কাপের শিরোপার পথে অনেকটাই এগিয়ে গেছে মিলান।

রোববার রাতে পার্ক দ্য প্রিন্সেসে হওয়া ম্যাচে ২৫ মিনিটেই ২-০ গোলে করে এগিয়ে যায় পিএসজি। কিন্তু চ্যাম্পিয়নদের মাঠে দারুণ ভাবে ঘুরে দাড়ায় ট্রয়েস। ১ পয়েন্ট নিয়ে যায় তারা।

ম্যাচে ষষ্ঠ মিনিটে অ্যাঞ্জেল ডি মারিয়ার কর্নার কিক থেকে বল পেয়ে বাম পায়ের শটে লক্ষ্যভেদ করে স্বাগতিকদের এগিয়ে দেন ব্রাজিলিয়ান ডিফেন্ডার মারকুইনহোস।

ডি বক্সের ভেতর এমবাপেকে প্রতিপক্ষের এক খেলোয়াড় ফাউল করলে রেফারি পেনাল্টির বাঁশি বাজান। স্পট কিক থেকে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন নেইমার।

পাঁচ মিনিট পর কানাডিয়ান ফরোয়ার্ড ইকে উগবো ডান পায়ের শটে নিশানাভেদ করে ট্রয়েসের হয়ে ব্যবধান কমান। ২৩ বছর বয়সী এই ফুটবলার বেলজিয়ান ফার্স্ট ডিভিশন এ ক্লাব জেঙ্ক থেকে লোনে ট্রয়েসে এসে খেলছেন।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই অতিথি দল পেয়ে যায় পেনাল্টি। ডি বক্সের ভেতর রেনাউদ রিপারকে ফাউল করেন প্রেসনেল কিমপেম্বে। স্পট কিক থেকে পানেনকা শটে গোল করে ম্যাচে সমতা আনেন ফ্লোরিয়ান টারডিউ।

এই ড্রয়ের পরও স্বাভাবিকভাবেই শীর্ষে পিএসজি। লিগের ৩৬ ম্যাচ শেষে তাদের সংগ্রহ ৮০ পয়েন্ট। সমান ম্যাচে ৩৭ পয়েন্ট নিয়ে ট্রয়েসের অবস্থান ১৬তম।

রোববার রাতে ওয়ান্দা মেট্রোপলিটনে দাপট ছিল দ্বিতীয় সারির দল নিয়ে নামা রিয়ালেরই। পুরো ম্যাচে ৬০ শতাংশ সময় বলের দখল নিজেদের নিয়ন্ত্রণে রাখে তারা। গোলের জন্য ১৫টি শট করে ৬টি ছিল লক্ষ্য বরাবর। কিন্তু একটিতেও গোল আদায় করে নিতে পারেনি তারা।

অন্যদিকে রক্ষণাত্মক ফুটবলের জন্য বিশেষ পরিচিত অ্যাটলেটিকো পুরো ম্যাচে লক্ষ্য বরাবর করতে পেরেছে মাত্র দুইটি শট। এর মধ্যে ম্যাচের ৪০ মিনিটে পাওয়া পেনাল্টি থেকে গোল আদায় করে নেন ইয়ানিক কারাস্কো। বক্সের ভেতরে ফাউল থেকে পেনাল্টিটি পেয়েছিল অ্যাটলেটিকো।

ভেরোনার মার্কান্তোনিও বেন্তেগোদিতে শুরুতেই গোল হজম করে বসেছিল মিলান। সেখান থেকে ঘুরে দাঁড়িয়ে ৩-১ গোলের জয় নিয়েই বাড়ি ফিরেছে তারা। এ জয়ের পর ৩৬ ম্যাচে মিলানের ঝুলিতে জমা রয়েছে ৮০ পয়েন্ট। সমান ম্যাচে দুইয়ে থাকা ইন্টারের সংগ্রহ ৭৮ পয়েন্ট।

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More

Privacy & Cookies Policy